লাইভ টিভি

সুন্দরী নারী পুরুষের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর

05.05.2010

ইনি কি সুন্দরী?

সুন্দরী দেখলে আড়চোখে তাকানো পুরুষের নতুন অভ্যাস নয়৷ তার উপরে যদি সেই নারী একটু বেশিই সুন্দরী হন, তাহলে লাজলজ্জা ভুলে তার দিকে হাঁ করে তাকিয়ে থাকতেও দেখা যায় অনেক পুরুষকে৷ সাবধান, সুন্দরীরা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর৷

হ্যাঁ, একদল গবেষক বলছেন, আকর্ষনীয় নারীর সান্নিধ্যে আসলে পুরুষের মধ্যে মানসিক চাপ বাড়তে থাকে৷ এমনকি এই চাপ বাড়ার কারণে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে যাওয়ারও আশঙ্কা রয়েছে!

সুন্দরী নারীদের নিয়ে এমন মতামত প্রচার করছেন স্পেনের ভ্যালেন্সিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা৷ তাঁদের কথায়, একজন পুরুষ সুন্দরী নারীর পাশে পাঁচ মিনিট বসলেই নাকি পুরুষের মধ্যে মানসিক চাপ বৃদ্ধি পায়৷ যা শরীরে কোর্ট্রিসল নামক বিশেষ হরমোনের প্রবাহ বাড়িয়ে দেয়৷ আর বিপত্তি সেখানেই৷ এই হরমোনের বাড়তি প্রবাহ আবার হৃদযন্ত্রের নানা রোগের জন্য দায়ী৷

যা কিছু মেয়েদের রূপসি করে
ঘুমের মধ্য দিয়েই শুরু

ঘুম ভালো না হলে তার প্রভাব যে চোখে-মুখে পড়ে, সেকথা আমরা জানি৷ ঘুম শরীরের হরমনে প্রভাব ফেলে, শরীরের ফ্যাট ক্ষয় করে এবং শরীরের ইমিউন সিস্টেমকে শক্তিশালী করে মন-মেজাজ ভালো রাখতে সাহায্য করে৷ রাতে যে নারী ভালো ঘুমায় সকালে তাকে দেখতে সুন্দর এবং তরতাজা লাগে৷ শুধু তাই নয়, সারাদিনই সে ফিট থাকে৷

যা কিছু মেয়েদের রূপসি করে
সকালের ছবি

স্টকহোমের কারোলিনস্কা ইন্সটিটিউট সুইডেনের মেয়েদের মধ্যে ঘুমের প্রভাব নিয়ে একটি সমীক্ষা চালিয়েছিল৷ সেসময় কয়েকজন মেয়েকে ৮ ঘণ্টা এবং অন্যদের মাত্র ৫ ঘণ্টা ঘুমাতে দেয়া হয়৷ তারপর সকালবেলার তোলা হয় তাদের সকলের ছবি৷ বিচারকদের মতে, ৫ ঘণ্টা নয়, পুরো ৮ ঘণ্টা ঘুমানোর পরের তোলা ছবিতে মেয়েদের দেখতে অনেক সুন্দর, সজীব এবং ফিট লেগেছে৷ অর্থাৎ ‘বিউটি স্লিপ’ যে শুধু কথার কথা নয়, তা বৈজ্ঞানিকভাবে প্রমাণিত হয়েছে৷

যা কিছু মেয়েদের রূপসি করে
ডায়বেটিস ‘টাইপ টু’

যে নারীর প্রায় প্রতি রাতে ৭ ঘণ্টার কম ঘুম হয়, তার ‘ডায়বেটিস টাইপ টু’ হওয়ার ঝুঁকি আছে – এ তথ্য ডেনমার্কের হেলসিঙ্কি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীদের গবেষণায় উঠে এসেছে৷ গভীর ঘুমের সময় শরীরের রক্তনালী প্রশস্ত হয় এবং তখন ভালোভাবে পুষ্টি চলাচল করতে পারে৷ ফলে ত্বক হয় মসৃণ আর সজীব৷

যা কিছু মেয়েদের রূপসি করে
হাসি বয়স কমায়

যাদের যথেষ্ট ঘুম হয়, তাদের স্বাভাবিকভাবেই মন-মেজাজ ভালো থাকে৷ তারা স্বাভাবিকভাবেই বেশি হাসে এবং তাদের চেহারা দেখেও সহানুভূতিশীল মনে হয়৷ যারা কম হাসে বা মুখ বিষণ্ণ করে রাখে তাদের চেয়ে হাসিখুশি মানুষকে যে দেখতে সুন্দর, এমনকি দেখলে তাদের বয়সও কম বলে মনে হয় – সেকথা আর বলার অপেক্ষা রাখে না!

যা কিছু মেয়েদের রূপসি করে
সৌন্দর্য ভেতর থেকে আসে

‘‘ক্রিমের পরিবর্তে গাজর, মাস্কের বদলে আম’’৷ অর্থাৎ সুন্দর হতে চাওয়া মানে এই নয় যে, সবসময় দামি কসমেটিক ব্যবহার করতে হবে৷ বরং তার বদলে ভিটামিন যুক্ত খাবার খাওয়াই শ্রেয়৷ বেশ কিছু সমীক্ষার ফলাফলে দেখা গেছে, যারা কম ফল-সবজি খায়, তাদের তুলনায় যারা বেশি সবজি এবং ফল খায়, তাদের মুখে কম বলিরেখা পড়েছে৷ কাজেই ত্বকের ওপরে ক্রিম বা মাস্ক মাখার চেয়ে গাজর বা আমের মতো ফল খেলেই উপকার বেশি পাওয়া যায়৷

যা কিছু মেয়েদের রূপসি করে
ত্বকের জন্য যথেষ্ট পুষ্টি

স্বাস্থ্যকর খাবার খেলে ত্বক হয় টানটান, চুল ও নখ হয় সুন্দর এবং আকর্ষণীয়৷ বয়সকে জয় করতে নিয়মিত রঙিন সবজি, অর্থাৎ গাজর, মিষ্টি আলু, মিষ্টি কুমড়া, ব্রকলি ইত্যাদি খেতে হবে৷ সুন্দর ত্বকের জন্য প্রয়োজন মাছ এবং সবুজ শাক-পাতা বা স্যালাডও৷ ধূমপান, মদ্যপান এবং অতিরিক্ত সূর্যের আলো থেকে নিজেকে দূরে রাখা প্রয়োজন৷ প্রয়োজন প্রতিদিন ২ লিটার পানি পান করা প্রচুর ভিটামিন সি খাওয়া, যেমন লেবু বা কমলা জাতীয় ফল৷

যা কিছু মেয়েদের রূপসি করে
ব্যায়ামের মাধ্যমে সুন্দর থাকুন

সপ্তাহে তিন থেকে চারদিন, যে কোনো ধরনের ব্যায়াম বা খেলাধুলা খুবই জরুরি৷ ব্যায়াম শরীরকে ঝরঝরে ও সজীব রাখে এবং স্ট্রেস ভুলিয়ে দিতে বড় ভূমিকা পালন করে৷ দৈনন্দিন কাজের চাপের পর যে করেই হোক কিছুটা সময় নিজের জন্য ব্যয় করা তাই খুবই দরকার৷ তাছাড়া ঘরের নানা কাজও এক ধরণের ব্যায়াম আর এই ব্যায়ামের মাধ্যমে নিজের বাড়িও পরিষ্কার থাকবে, শরীর ও মন – দুটোই থাকবে সুন্দর৷

যা কিছু মেয়েদের রূপসি করে
‘বিউটি স্ন্যাকস’

শুধু বিউটি স্লিপ নয়, চাই বিউটি স্ন্যাকসও৷ লাঞ্চ ব্রেক-এ সাদা দই-এর সাথে বিভিন্ন ফল মিশিয়ে খেলে পাওয়া যায় দিনের প্রয়োজনীয় ক্যালসিয়াম, ভিটামিন সি,ই ইত্যাদি৷ যা আপনাকে অসংখ্য নারীর মাঝে করে তুলবে উজ্জ্বল আর আকর্ষণীয়৷

যা কিছু মেয়েদের রূপসি করে
ব্যক্তিত্ব

সুন্দর ফিগার, মসৃন ত্বক আর শক্তিশালী ব্যক্তিত্ব যে কোনো মেয়েকে করে তোলে সুন্দর ও আকর্ষণীয়৷ তার সঙ্গে সামান্য মেকআপ আর মিষ্টি একটু হাসি থাকলে যে কেউই হতে পারে অনন্যা৷

1
| 9

অবশ্য গবেষকরা আশ্বস্ত করে বলেছেন, পুরুষদের মধ্যে যারা নারীদের কাছ থেকে সবসময় দূরে থাকতে ভালোবাসেন তাদের জন্য সুন্দরীরা একটু বেশি ক্ষতিকর

ভ্যালেন্সিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা, ৮৪ জন স্বেচ্ছাসেবী পুরুষের উপর গবেষণা চালিয়ে প্রকাশ করেছে এই তথ্য৷ এসব স্বেচ্ছাসেবীদের ভিন্ন ভিন্ন সময়ে এককভাবে একটি কক্ষে বসিয়ে সুডোকু পাজল এর সমাধান করতে বলা হয়৷ এসময় অপরিচিত সুন্দরী এক নারীকে ঢুকিয়ে দেয়া হয় সেই রুমে৷ আর তাতেই নাকি অনেকের শরীরে কোট্রিসল এর প্রবাহ বেড়ে যায়৷ কিন্তু নারীর স্থলে কোন পুরুষ রুমে ঢুকলে স্বেচ্ছাসেবী পুরুষদের মধ্যে কোন পরিবর্তন দেখা যায়নি৷

গবেষকরা বলছেন, কম বয়সী সুন্দরী নারী আশেপাশে দেখলে অধিকাংশ পুরুষ প্রেমের সুযোগ আছে বলে ভাবতে শুরু করেন৷ খুব কম পুরুষই সুন্দরীদের পাশ কাটিয়ে চলতে পারেন৷

উল্লেখ্য, শরীরে স্বল্পমাত্রায় কোট্রিসলের প্রবাহ ক্ষতিকর নয়৷ বরং তা মানুষের কর্মক্ষমতা বাড়াতে সহায়ক৷ কিন্তু বেশীমাত্রায় কোট্রিসলের প্রবাহ হৃদযন্ত্রের ক্ষতি থেকে শুরু করে ডায়াবেটিস এমনকি পুরুষকে নপুংসক পর্যন্ত করে ফেলতে পারে৷ তাই, সম্ভব হলে সুন্দরীদের এড়িয়ে চলাই সমাচীন!